ওসি প্রদীপসহ ৭ আসামির ‘জিজ্ঞাসাবাদ’ শুরু

ওসি প্রদীপসহ ৭ আসামির ‘জিজ্ঞাসাবাদ’ শুরু

ওসি প্রদীপসহ ৭ আসামির ‘জিজ্ঞাসাবাদ’ শুরু

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলার আসামি ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ সাত আসামিকে সাত দিন করে রিমান্ড দিয়েছেন আদালত। মামলা তদন্তের দায়িত্বে থাকা র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) সে অনুযায়ী জিজ্ঞাসাবাদের প্রক্রিয়া শুরু করেছে বলে জানা গেছে।

আজ শুক্রবার তথ্যটি নিশ্চিত করে কক্সবাজার র‌্যাব-১৫ এর উপ-অধিনায়ক মেজর মেহেদী হাসান বলেন, প্রক্রিয়া অনুযায়ী ইতোমধ্যে কাজ শুরু করা হয়েছে।

তবে সিনহা হত্যা মামলার আসামিদের রিমান্ডের বিষয়ে আদালত থেকে কোনো কাগজপত্র এখনো কারা কর্তৃপক্ষের কাছে পৌঁছেনি জানিয়ে কক্সবাজার জেলা কারাগার সুপার মো. মোকাম্মেল হোসেন বলেন, মামলার রিমান্ডের আসামিদের বের করার কোনো অনুমতি এখনো হাতে পৌঁছেনি। আদালত থেকে আদেশের কপি হাতে আসার পরই পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার ওসি প্রদীপসহ ৭ আসামি কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। তখন র‌্যাবের পক্ষ থেকে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়। শুনানি শেষে প্রথমে ওসি প্রদীপসহ তিন জনকে সাত দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত এবং বাকি চার আসামিকে দুদিন করে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুমতি দেন। পরে র‌্যাবের আরেক আবেদনের প্রেক্ষিতে আদালত সাত আসামিকেই সাত দিন করে রিমান্ড দেন। 

ওসি প্রদীপ দাশ ছাড়া এ মামলার অন্য আসামিরা হলেন- বাহারছড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের প্রত্যাহার হওয়া পরিদর্শক (ইন্সপেক্টর) লিয়াকত আলী, উপ-পরিদর্শক (এসআই) নন্দ দুলাল রক্ষিত, সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) লিটন মিয়া, এএসআই টুটুল, কনস্টেবল সাফানুর করিম, কনস্টেবল কামাল হোসেন, কনস্টেবল মো. আবদুল্লাহ আল মামুন ও কনস্টেবল মোহাম্মদ মোস্তফা। এর মধ্যে দুই আসামি বর্তমানে পলাতক রয়েছেন।