বিকাশে টাকা আত্মসাৎ ও প্রধানমন্ত্রীর নামে কটূক্তি করার অভিযোগে ফ্লেক্সিলোড ব্যবসায়ী আটক

      বিকাশে টাকা আত্মসাৎ ও প্রধানমন্ত্রীর নামে কটূক্তি করার অভিযোগে ফ্লেক্সিলোড ব্যবসায়ী আটক

      বিকাশে টাকা আত্মসাৎ ও প্রধানমন্ত্রীর নামে কটূক্তি করার অভিযোগে ফ্লেক্সিলোড ব্যবসায়ী আটক

    
      
 

এএনবি পঞ্চগড় প্রতিনিধি  ঃপঞ্চগড়ে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলের টাকা প্রতারণার মাধ্যমে আত্মসাৎ ও প্রধানমন্ত্রীর নামে কটূক্তি করার অভিযোগে হুসেন আলী (৩৫) নামে এক ফ্লেক্সিলোড ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়েছে। তার বাড়ি জেলার সদর উপজেলার পঞ্চগড় ইউনিয়নের সর্দ্দারপাড়া গ্রামে। সে ওই গ্রামের শুকুরু মিয়ার ছেলে।
পুলিশ ও মামলার অভিযোগে জানা যায়, করোনাভাইরাস মহামারিতে ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় পরিবার হিসেবে জেলার সদর উপজেলার পঞ্চগড় ইউনিয়নের সর্দারপাড়া গ্রামের হামিদুল ইসলামের স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিনের মোবাইলের বিকাশ নাম্বারে আড়াই হাজার টাকা অর্থ সহায়তা দেয়া হয়। গত ২৪ মে টাকাটি তার বিকাশ নাম্বারে আসে।
পরদিন ২৫ মে হামিদুল ওই মোবাইল নিয়ে জেলার সদর উপজেলার জগদল বাজারের ফ্লেক্সিলোড ব্যবসায়ী ও বিকাশ এজেন্ট মেসার্স স্বপন ইলেকট্রনিক্সে হুসেন আলীর কাছে নিয়ে যান। ২০ মিনিট ধরে মোবাইল ঘাটাঘাটি করে হুসেন আলী হামিদুলকে জানান তার মোবাইলে টাকা আসেনি। পরে তার স্ত্রীকে জানায় মোবাইলে টাকা আসেনি।
এরপর সাবিনা বিষয়টি স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের জানায়। পরে তারা গিয়ে দেখতে পান হুসেন টাকাটি ক্যাশ আউট করে নিয়েছে। এ নিয়ে স্থানীয়দের সঙ্গে তার বাকবিতÐা হয়। এ সময় হুসেন আলী প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটূক্তিও করে।
পরে খবর পেয়ে পঞ্চগড় সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. গোলাম রব্বানী ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) আমিনুল ইসলাম পুলিশসহ ঘটনাস্থলে যায়।
এ সময় জগদল বাজার বণিক সমিতির সভাপতি মানিক খান আড়াই হাজার টাকা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. গোলাম রব্বানীর হাতে দেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. গোলাম রব্বানী ওই টাকা সাবিনা ইয়াসমিনের হাতে তুলে দেন। পরে পুলিশ ফ্লেক্সিলোড ব্যবসায়ী হুসেন আলীকে থানায় নিয়ে আসে। এ ঘটনায় সাবিনা ইয়াসমিনের স্বামী হামিদুল ইসলাম তার বিরুদ্ধে পঞ্চগড় থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। তার বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে জানান পঞ্চগড় সদর থানার ওসি আবু আক্কাস আহমদ।